1. admin@dailyoporadh.com : admin :
নতুন শিক্ষাক্রমের রূপরেখা অনুযায়ী প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা (পিইসি) বাদ হয়ে যাওয়ার কথা - দৈনিক অপরাধ
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
(ইউপি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের আটকাবস্থা থেকে দুই ম্যাজিস্ট্রেটসহ পাঁচজনকে রোববার রাতে উদ্ধার করা হয়েছে ৪১তম বিসিএসের আবশ্যিক বিষয়ের লিখিত পরীক্ষা আজ সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে অন্যের হয়ে পরীক্ষা দিতে গিয়ে ধরা পড়া বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) এক ছাত্রকে কারাগারে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরিস্থিতি নিয়ে আজ সন্ধ্যায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার রায় আজ করোনাভাইরাসের নতুন ধরন (ভেরিয়েন্ট) ১১টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ব্লুটুথ প্রযুক্তিসংবলিত কোনো মোটরসাইকেলের নিবন্ধন দেবে না বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) ডিসেম্বরের শুরুতে এটি নিম্নচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে: আবহাওয়া অধিদপ্তর শিক্ষার্থীদের কম ভাড়ায় চলাচল নিশ্চিত করা উচিত, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ২৪ ঘণ্টায় আরও ২ জনের মৃত্যু হয়েছে

নতুন শিক্ষাক্রমের রূপরেখা অনুযায়ী প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা (পিইসি) বাদ হয়ে যাওয়ার কথা

জয়িতা দাস
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর, ২০২১
  • ২৯ বার পঠিত

নতুন শিক্ষাক্রমের রূপরেখা অনুযায়ী প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা (পিইসি) বাদ হয়ে যাওয়ার কথা। শিক্ষার্থীদের ওপর অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করায় শিক্ষাবিদসহ শিক্ষা নিয়ে কাজ করা সংগঠনগুলোও দীর্ঘদিন ধরে এই পরীক্ষা বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছে। অথচ এই পরীক্ষা স্থায়ী করতে ‘প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড’ স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। যার অন্যতম কাজ হবে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ব্যবস্থাপনার যাবতীয় কাজ করা।

শিক্ষাবিদেরা বলছেন, এ উদ্যোগ সরকারের নতুন শিক্ষাক্রমের দর্শনের বিরোধী পদক্ষেপ। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষার্থীদের ওপর পরীক্ষার বোঝা কমাতে চান। এ জন্য তিনি তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত কোনো আনুষ্ঠানিক পরীক্ষা না রাখার নির্দেশনা দিয়েছেন। এ রকম পরিস্থিতিতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা স্থায়ী করলে তা শিক্ষার্থীদের ওপর যেমন বাড়তি বোঝা হয়ে থাকবে; তেমনি কোচিং, প্রাইভেট ও নোট-গাইডের ব্যবসা আরও রমরমা হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, যেহেতু পরীক্ষা হচ্ছে, প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করতে হয়, সে জন্য বোর্ড করতে চাইছেন তাঁরা। কারণ, প্রাথমিক স্তরে পিইসি পরীক্ষাসহ নানান পরীক্ষা আছে। তিনি বলেন, বোর্ড করা দরকার, তাই করতে হচ্ছে। এখন তার সুফল-কুফল নিয়ে লেখালেখি হলে জাতি যদি না চায়, তখন তা পরিবর্তনও হতে পারে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে ২০০৯ সাল থেকে পিইসি পরীক্ষা নেওয়া শুরু করে সরকার। মাদ্রাসার সমমানের শিক্ষার্থীদের জন্যও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা চালু করা হয়।

শিক্ষাবিদেরা বলে আসছেন, পিইসি পরীক্ষা শিক্ষার্থীদের মুখস্থনির্ভরতা, গাইড বই অনুসরণ ও কোচিং-বাণিজ্যের প্রসার ঘটিয়েছে। শিক্ষা নিয়ে কাজ করা বেসরকারি সংস্থাগুলোর মোর্চা গণসাক্ষরতা অভিযানের এক গবেষণায় দেখা গেছে, পিইসি পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য দেশের ৮৬ শতাংশের বেশি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের কোচিং করতে হয়। আবার ৭৮ শতাংশ সরকারি বিদ্যালয়ে এই পরীক্ষার জন্য কোচিং ছিল বাধ্যতামূলক।

২০১০ সালে করা জাতীয় শিক্ষানীতিতে বলা আছে, পঞ্চম শ্রেণি শেষে উপজেলা, পৌরসভা বা থানা পর্যায়ে সবার জন্য অভিন্ন প্রশ্নপত্রে সমাপনী পরীক্ষা হবে। অর্থাৎ শিক্ষানীতিতে পঞ্চম শ্রেণিতে জাতীয়ভাবে পরীক্ষা নেওয়ার কথা নেই। কিন্তু নিজেদের করা শিক্ষানীতিই ঠিকমতো বাস্তবায়ন করেনি সরকার। উপরন্তু এখন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় পিইসি পরীক্ষাকে দীর্ঘমেয়াদি করতে ‘প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড’ স্থাপন করতে যাচ্ছে। বোর্ড গঠন করতে প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড আইন, ২০২১-এর খসড়াও করেছে মন্ত্রণালয়। খসড়ার বিষয়ে মতামত দিতে তা গত রোববার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে। খসড়ার বিষয়ে কারও কোনো মতামত বা সুপারিশ থাকলে তা ২৫ নভেম্বরের মধ্যে দিতে বলা হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক অপরাধ ©
A Sister Concern of Prachi 2020 Ltd