1. admin@dailyoporadh.com : admin :
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের নথি গায়েবের ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি হওয়ার এক সপ্তাহ হয়ে গেলেও দোষী কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি - দৈনিক অপরাধ
রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৩৭ অপরাহ্ন
রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় দিনের শুরুতেই বৃষ্টির বাগড়া শুধু পাস করেই চাকরির পেছনে না ছুটে নিজেরা উদ্যোক্তা হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে করোনা সংক্রমিত ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, এ সময় রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৯৭ জন বাংলাদেশ ও ভারতের বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি হতে পারে করোনাভাইরাসের সংক্রমণে গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে সিএনজিচালিত অটোরিকশার সঙ্গে ডেমু ট্রেনের সংঘর্ষে দুজন নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন আরও চারজন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে কন্টেইনারবাহী কাভার্ড ভ্যানের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন করোনার দুঃসময়ে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা সমুদ্রগামী জাহাজে বিনিয়োগের সুযোগ নিয়েছেন এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে চলমান আন্দোলন কর্মসূচি সীমিত অদম্য ইচ্ছার জোরেই এখন স্বপ্নের কাছাকাছি এসে পৌঁছেছেন শোভা রানী

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের নথি গায়েবের ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি হওয়ার এক সপ্তাহ হয়ে গেলেও দোষী কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি

দৈনিক অপরাধ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৪ নভেম্বর, ২০২১
  • ৩৭ বার পঠিত

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের নথি গায়েবের ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি হওয়ার এক সপ্তাহ হয়ে গেলেও দোষী কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে এখনো মামলাও হয়নি। এ নিয়ে এখন পুরো বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যেই অস্বস্তি ও একধরনের আতঙ্ক কাজ করছে। তাঁরা চান দ্রুত এই ঘটনায় দোষী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করা হোক। কারণ এই ঘটনার জন্য এখন সবাই বদনামের ভাগীদার হচ্ছেন।

শাহবাগ থানায় হওয়া জিডির ছায়া তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। তদন্তসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের কোনো কোনো কর্মকর্তার দ্বন্দ্বের জের ধরেও ফাইলগুলো সরানো হয়ে থাকতে পারে। একই কারণে গত আগস্টেও একবার ফাইল গায়েব করা হয়েছিল।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একাধিক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলছেন, ঘটনাটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের হওয়ায় সরকারের সিদ্ধান্ত ছাড়া মামলাও নিতে পারছেন না। আর মামলা না হওয়ায় তদন্ত করতেও কিছু অসুবিধা হচ্ছে।

গতকাল বুধবার রাত পৌনে আটটায় যোগাযোগ করা হলে শাহবাগ থানার ওসি মওদুত হাওলাদার বলেন, ওই ঘটনায় স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের আটক ৯ জন কর্মচারীকে শাহবাগ থানায় হস্তান্তর করেনি সিআইডি। এ বিষয়ে থানায় কোনো মামলাও হয়নি।

অন্যদিকে মন্ত্রণালয়ের প্রশাসনিক তদন্ত কমিটির প্রধান স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. শাহ আলম গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, তদন্তের কাজ চলছে। এর বাইরে আর কিছু বলতে চাননি তিনি।

জানা গেছে, গত ২৭ অক্টোবর সাতটি গুরুত্বপূর্ণ নথি (ফাইল) অফিসের স্টিলের ফাইল কেবিনেটে রাখা হয়। পরদিন ২৮ অক্টোবর দুপুরে দেখা যায় ফাইলগুলো কেবিনেটের মধ্যে নেই। এরপর ওই শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসচিব নাদিয়া হায়দার শাহবাগ থানায় জিডি করেন। ওই দিনই সিআইডির একজন কর্মকর্তার নেতৃত্বে ক্রাইম সিন ইউনিটসহ একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় মন্ত্রণালয়ের ৯ জন কর্মচারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে সিআইডি।

জিডির তদন্ত তত্ত্বাবধানকারী সিআইডির অতিরিক্ত উপমহাপরিদর্শক মো. ইমাম হোসেন বলেন, জিডির তদন্তের অবস্থা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে জানানো হবে। তারা চাইলে মামলা করে আটক ৯ জনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে নথি গায়েবের রহস্যের উদ্‌ঘাটন করবে। আর মন্ত্রণালয় আগ্রহী না হলে সে ক্ষেত্রে সিআইডি মন্ত্রণালয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দেবে।

জানা গেছে, নথিগুলো ছিল স্বাস্থ্যশিক্ষা অধিদপ্তর, জাতীয় জনসংখ্যা গবেষণা ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান, নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ ও দপ্তরের কেনাকাটাসংক্রান্ত।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের একজন কর্মকর্তা বলেন, ভবিষ্যতে যেসব বিষয় কেনাকাটা হবে, তার প্রশাসনিক অনুমোদনের জন্য ওই নথিগুলো মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। এসব ফাইল গায়েব করার কী উদ্দেশ্য থাকতে পারে, সেটিও তাঁরা বুঝতে পারছেন না। তবে চান দ্রুত এই ঘটনার উদ্‌ঘাটন হোক।

 

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক অপরাধ ©
A Sister Concern of Prachi 2020 Ltd