1. admin@dailyoporadh.com : admin :
চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ঢামেক) থেকে গুরুতর অসুস্থ এক রোগী নিখোঁজ হয়েছেন - দৈনিক অপরাধ
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:৫৬ অপরাহ্ন
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
(ইউপি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের আটকাবস্থা থেকে দুই ম্যাজিস্ট্রেটসহ পাঁচজনকে রোববার রাতে উদ্ধার করা হয়েছে ৪১তম বিসিএসের আবশ্যিক বিষয়ের লিখিত পরীক্ষা আজ সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে অন্যের হয়ে পরীক্ষা দিতে গিয়ে ধরা পড়া বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) এক ছাত্রকে কারাগারে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরিস্থিতি নিয়ে আজ সন্ধ্যায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার রায় আজ করোনাভাইরাসের নতুন ধরন (ভেরিয়েন্ট) ১১টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ব্লুটুথ প্রযুক্তিসংবলিত কোনো মোটরসাইকেলের নিবন্ধন দেবে না বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) ডিসেম্বরের শুরুতে এটি নিম্নচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে: আবহাওয়া অধিদপ্তর শিক্ষার্থীদের কম ভাড়ায় চলাচল নিশ্চিত করা উচিত, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ২৪ ঘণ্টায় আরও ২ জনের মৃত্যু হয়েছে

চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ঢামেক) থেকে গুরুতর অসুস্থ এক রোগী নিখোঁজ হয়েছেন

জয়িতা দাস
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩১ বার পঠিত

চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ঢামেক) থেকে গুরুতর অসুস্থ এক রোগী নিখোঁজ হয়েছেন। আজ মঙ্গলবার সকাল আটটার পর থেকে তাঁকে পাওয়া যাচ্ছে না। রোগীর নাম মো. মাঈনুদ্দিন, বয়স ২৮ বছর। ছেলে নিখোঁজ হওয়ার কথা জানিয়ে রাতে এ বিষয়ে শাহবাগ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন রোগীর বাবা রবিউল হক।

মাঈনুদ্দিন কিডনি, লিভারের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছিলেন বলে জানা গেছে। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ২৩ অক্টোবর মাঈনুদ্দিনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি হাসপাতালের ৬০১ নম্বর ওয়ার্ডের ২৯ নম্বর শয্যায় ভর্তি ছিলেন। হাসপাতালে তাঁর বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা হচ্ছিল।

রোগীর বাবা রবিউল হক সাধারণ ডায়েরিতে উল্লেখ করেন, সকাল আটটার দিকে দুজন চিকিৎসক একটি পরীক্ষার জন্য ছেলে মাঈনুদ্দিনকে ছয়তলার ওই ওয়ার্ড থেকে ১০ তলার একটি কক্ষে নিয়ে যান। এ সময় মাঈনুদ্দিনের বড় ভাই জামাল উদ্দিনও সঙ্গে যান। মাঈনুদ্দিনকে কক্ষে রেখে তাঁর জন্য নাশতা আনতে বাইরে যান জামাল। কিন্তু ফিরে এসে ওই কক্ষে তাঁকে পাওয়া যায়নি। দিনভর হাসপাতালে অনেক খোঁজাখুঁজির পরও সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক, ওয়ার্ড মাস্টার ও ওয়ার্ডের নার্সরা মাঈনুদ্দিনের সন্ধান পাননি। পরে থানায় ডায়েরি করেন।

মাঈনুদ্দিনের বাড়ি ফেনী সদর উপজেলার মোটবী ইউনিয়নের উত্তর লক্ষ্মীপুর গ্রামে। দরিদ্র কৃষক পরিবারের সন্তান মাঈনুদ্দিন নিখোঁজ হওয়ার সময় পরনে চেক লুঙ্গি ও গায়ে কমলা রঙের টি-শার্ট ছিল। প্রায় ছয় ফুট উচ্চতার মাঈনুদ্দিনের গায়ের রং শ্যামবর্ণ। তাঁর মুখমণ্ডল গোলাকার। রোগাক্রান্ত হওয়ার কারণে তাঁর শরীর খুবই দুর্বল এবং স্বাভাবিক হাঁটাচলা করতে পারেন না।

চিকিৎসা করাতে ছেলে মাঈনুদ্দিনের সঙ্গে ঢাকায় এসেছিলেন মা ছালেহা খাতুন, বাবা রবিউল হক ও ভাই জামাল উদ্দিন। সারা দিন নানা জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে হয়রান তিনজন।

রাতে শাহবাগ থানায় কান্নাজড়িত কণ্ঠে রবিউল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘বলেন তো কোথায় গেলে আমার ছেলেকে পাব? তার মা হাসপাতালে কাঁদছে। এই রাতে আমরা কোথায় যাব।’

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মওদুত হাওলাদার বলেন, ‘আমরা সংশ্লিষ্ট জায়গাগুলোতে এ তথ্য জানিয়ে দিয়েছি। শিগগির তদন্ত শুরু হবে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দায়িত্বরত ওয়ার্ড মাস্টার রিয়াজ উদ্দিন বলেন, ‘ওয়ার্ড থেকে চিকিৎসকেরা হাসপাতাল স্টাফদের সহযোগিতায় রোগী নিয়ে থাকেন এবং তাঁরাই আবার ওয়ার্ডে রোগীকে দিয়ে যান। এই রোগী নিয়েছিলেন চিকিৎসক আশিক জামান। কিন্তু তিনি রোগীকে ওয়ার্ডে পৌঁছে দেননি। বিষয়টি পরিচালক স্যারকে জানানো হয়েছে।’
রিয়াজ উদ্দিন জানান, এ বিষয়ে হাসপাতালের পক্ষ থেকে শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হবে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, ‘রোগীর স্বজনেরা আমাদের কাছে অভিযোগ করেছেন। আমরা এ নিয়ে কাজ করছি, এর সঙ্গে কারা জড়িত, তা-ও দেখা হচ্ছে।’

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক অপরাধ ©
A Sister Concern of Prachi 2020 Ltd