1. admin@dailyoporadh.com : admin :
ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দেশে ৪০ জন মারা গেছে, আর শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৮৫৩ জন - দৈনিক অপরাধ
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ন
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
উচ্চমাধ্যমিক বা এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের জন্য আবার সুযোগ দিয়েছে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড সাম্প্রদায়িক শক্তি মনে করে, ঠিক একাত্তরের মতো টার্গেট করে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চালিয়ে তাদের দেশ থেকে বের করে দেওয়া যায় কক্সবাজারের উখিয়ার থাইনখালী রোহিঙ্গা শিবিরে দুটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনায় সাত জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছেন দ্বিতীয় ধাপে সারা দেশে ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) নির্বাচন হতে যাচ্ছে কক্সবাজারে আটক হওয়া ব্যক্তিই কুমিল্লার ইকবাল হোসেন, পুলিশ সুপার (এসপি) উজানের পাহাড়ি ঢল আর দুই দিনের বর্ষণে লালমনিরহাটে তিস্তার পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে দুর্গাপূজার অষ্টমীর দিন কুমিল্লা নগরের নানুয়া দিঘির উত্তর পাড়ের অস্থায়ী পূজামণ্ডপে ইকবাল হোসেন (৩৫) পবিত্র কোরআন রেখেছিলেন বলে পুলিশ জানিয়েছে রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতার জন্যই দেশে সাম্প্রদায়িকতার বিস্তার ঘটছে বলে মনে করেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলিউড তারকা শাহরুখ খানের বাড়িতে তল্লাশি চালাতে ঢুকেছেন ভারতের মাদক নিয়ন্ত্রণ ব্যুরোর (এনসিবি) কর্মকর্তারা দেশের ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী স্কুলশিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে, ক্রমান্বয়ে দেশের সব মানুষই টিকা পাবে

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দেশে ৪০ জন মারা গেছে, আর শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৮৫৩ জন

জুয়েল দাস।
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৭ বার পঠিত

বেসরকারি একটি হাসপাতালে মাত্র চার দিন চিকিৎসা নেওয়ার পরই ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা যান রাজধানীর পূর্ব জুরাইনের বাসিন্দা হেলেনা পারভীন (৪২)। হেলেনার আগে তাঁর দুই সন্তান হাসানুজ্জামান (২৩) ও আফরিন আক্তারও (২১) ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলেন। তাঁরা সুস্থ হয়ে ফিরলেও তাঁদের মা দুনিয়া ছেড়ে চলে গেছেন ১৮ আগস্ট।

পূর্ব জুরাইনের কমিশনার মোড় এলাকায় আরএস টাওয়ারের সপ্তম তলায় থাকতেন হেলেনা পারভীন। স্বামী সৌদিপ্রবাসী। হেলেনার প্রতিবেশী কামরুন্নাহার বলেন, তাঁদের ভবনের অনেকেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। এখনো তিনজন হাসপাতালে। সজল চোখে কামরুন্নাহার বললেন, হেলেনার আগে তিনি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। হাসপাতালে তাঁকে দেখতে গিয়ে হেলেনা বলেছিলেন, ডেঙ্গুর যে পরিস্থিতি, তাতে কখন কে আক্রান্ত হয় বলা যায় না। সেই তিনিই মারা গেলেন।
হেলেনার মতো চলতি আগস্টে পূর্ব জুরাইনের অন্তত আটজন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তাঁরা হলেন ইসরাত জাহান (৭), তোহা (৯), মুস্তাফিজুর রহমান (১১), ফাতেমা (৪৫), হোসনে আরা (৪৫), আকরাম হোসেন (৬২) ও সাঈদা খানম (৭৫)।

এক মাসের বেশি সময় ধরে পূর্ব জুরাইনের বাগানবাড়ি এলাকায় প্রতিটি ঘরে ঘরে ডেঙ্গু রোগী। স্থানীয়দের অভিযোগ, ঠিকমতো মশার ওষুধ ছিটানো হচ্ছে না। বিকেলে ছিটানো ওষুধে কেরোসিনের গন্ধ বের হয়। ওষুধের কার্যকারিতা নিয়েও প্রশ্ন তুলে তাঁরা বলেছেন, তাঁদের এলাকায় অন্তত এক হাজার জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত।

সড়ক উঁচু করায় পূর্ব জুরাইনের বেশির ভাগ ভবনের নিচতলা রাস্তার উচ্চতা থেকে নিচে নেমে গেছে। অনেক ভবনের নিচতলা ব্যবহারের অনুপযোগী হওয়ায় সেখানে পানি জমে থাকছে। আবার এলাকায় প্রচুর পরিত্যক্ত ভবন রয়েছে। ওই সব ভবনে পানি জমে থাকার কারণে এডিস মশা ব্যাপক হারে বংশবৃদ্ধি ঘটাচ্ছে। এ ছাড়া এলাকাটি তুলনামূলক নিচু হওয়ায় বিভিন্ন স্থানে পানি জমে থাকছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় মশকনিধন কার্যক্রমও পর্যাপ্ত নয়। এ কারণেই এ এলাকায় ডেঙ্গু পরিস্থিতি খারাপের দিকে চলে গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসেবে, এখন পর্যন্ত ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দেশে ৪০ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে চলতি আগস্ট মাসের প্রথম ২৫ দিনেই ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৮৫৩ জন।

পূর্ব জুরাইনের বাগানবাড়ির পুষ্পভিলা নামের একটি ভবনে এক যৌথ পরিবারের ১৭ সদস্যের মধ্যে ১৩ জন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। এখন সবাই সুস্থ আছেন।

একই এলাকার রাহাত মঞ্জিল নামের একটি ভবনের নিচতলায় স্ত্রী–সন্তান ও মাকে নিয়ে বসবাস করেন ভাঙারি ব্যবসায়ী মো. হান্নান। গতকাল বুধবার বিকেলে সরেজমিনে দেখা যায়, মো. হান্নান ও তাঁর সন্তান একটি মশারি টাঙিয়ে ভেতরে শুয়ে আছেন। আর মা রাশিদা বেগমকে আরেকটি কক্ষে মশার টাঙিয়ে শুইয়ে রাখা হয়েছে। সবাই ডেঙ্গু আক্রান্ত।

হান্নানের স্ত্রী শিরিন আক্তার বলেন, হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা করার সামথ্য তাঁদের নেই। তাই সবাইকে পরীক্ষার পর বাসায় নিয়ে এসেছেন।
গতকাল বিকেলে পূর্ব জুরাইনে যাওয়ার পর সাংবাদিক এসেছে, এ খবরে অনেকেই বাসা থেকে বেরিয়ে আসেন। এ সময় অন্তত ৩৩ জনের সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। এসব ব্যক্তি হয় নিজে, না হয় তাঁদের পরিবারের সদস্য ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রায় আড়াই ঘণ্টা ওই এলাকায় অবস্থানের সময় ছয়জনকে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে বাসায় ফিরতে দেখা গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা ফখরুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, পূর্ব জুরাইনের পরিস্থিতি কতটা ভয়াবহ, তা কেউ না এলে বুঝতে পারবে না।

গতকাল বেলা সোয়া দুইটা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত পূর্ব জুরাইনের কমিশনার রোড ও বাগানবাড়ি এলাকার অন্তত ২৩টি বাড়ি পরিদর্শন করে প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই ডেঙ্গু রোগী পাওয়া গেছে।

পূর্ব জুরাইন এলাকা ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৫৩ নম্বর ওয়ার্ডে পড়েছে। ডেঙ্গু পরিস্থিতি খুব খারাপ অবস্থায় রয়েছে জানিয়ে ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মীর হোসেন বলেন, তাঁর এলাকায় এখন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে ৮ জন মারা গেছেন। পরিস্থিতি তিনি কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন।

জানতে চাইলে দক্ষিণ সিটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ প্রথম আলোকে বলেন, পূর্ব জুরাইন এলাকার পরিস্থিতি সম্পর্কে তাঁরা অবগত। সেখানে মশার ওষুধ ছিটানোর কার্যক্রম নিয়ে তাঁরা বিশেষ ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

এ মাসের শুরুতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক গবেষণায় দক্ষিণ যাত্রাবাড়ী ও পূর্ব জুরাইনকে ডেঙ্গুর হটস্পট হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছিল।

কীটতত্ত্ববিদ অধ্যাপক কবিরুল বাশার বলেন, পূর্ব জুরাইনের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হলে এক দিনে সব উড়ন্ত মশা মেরে ফেলতে হবে। সিটি করপোরেশনকে দ্রুতই এ কাজ করতে হবে। তা না হলে পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে যাবে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক অপরাধ ©
A Sister Concern of Prachi 2020 Ltd