1. admin@dailyoporadh.com : admin :
ই-অরেঞ্জসহ ৪ প্রতিষ্ঠানের সদস্যপদ স্থগিত করেছে ই-ক্যাব - দৈনিক অপরাধ
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩৭ অপরাহ্ন
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বাংলাদেশের সঙ্গে তুরস্কের বাণিজ্যিক সম্পর্ক করোনা মহামারির মধ্যেও খুব একটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন তুরস্কের রাষ্ট্রদূত ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশকে পৃথিবীর ‘নাম্বার ওয়ান’ বা সেরা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন করোনা সংক্রমণে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে, এ সময় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ২৭৮ জন। চেক জালিয়াতির মাধ্যমে যশোর শিক্ষা বোর্ডের ব্যাংক হিসাব থেকে আরও আড়াই কোটি টাকা আত্মসাত সারা দেশে প্রতিমা, পূজামণ্ডপ, মন্দিরে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে গণ–অনশন, গণ–অবস্থান ও বিক্ষোভ মিছিল করছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা উচ্চমাধ্যমিক বা এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের জন্য আবার সুযোগ দিয়েছে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড সাম্প্রদায়িক শক্তি মনে করে, ঠিক একাত্তরের মতো টার্গেট করে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চালিয়ে তাদের দেশ থেকে বের করে দেওয়া যায় কক্সবাজারের উখিয়ার থাইনখালী রোহিঙ্গা শিবিরে দুটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনায় সাত জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছেন দ্বিতীয় ধাপে সারা দেশে ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) নির্বাচন হতে যাচ্ছে কক্সবাজারে আটক হওয়া ব্যক্তিই কুমিল্লার ইকবাল হোসেন, পুলিশ সুপার (এসপি)

ই-অরেঞ্জসহ ৪ প্রতিষ্ঠানের সদস্যপদ স্থগিত করেছে ই-ক্যাব

জুয়েল দাস।
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৫ বার পঠিত

বিভিন্ন অভিযোগে আলোচিত ই-অরেঞ্জসহ চারটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের সদস্যপদ স্থগিত করেছে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব)। বাকি তিনটি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে—টুয়েন্টিফোর টিকেটি ডটকম, গ্রিন বাংলা ই-কমার্স লিমিটেড ও এক্সিলেন্ট ওয়ার্ল্ড অ্যাগ্রো ফুড অ্যান্ড কনজ্যুমার লিমিটেড।

আজ বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ই-ক্যাব চার প্রতিষ্ঠানের সদস্যপদ স্থগিত করার বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়। এতে বলা হয়, অর্থ আত্মসাৎ, ক্রেতা ও সরবরাহকারীদের অভিযোগ নিষ্পত্তি না করা, ই-ক্যাবের কারণ দর্শানো ও সতর্কীকরণপত্রের জবাব না দেওয়া, ডিজিটাল কমার্স নির্দেশিকা প্রতিপালন না করা এবং এমএলএম ব্যবসা পরিচালনা করায় চার প্রতিষ্ঠানের সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছে।

ই-ক্যাব জানায়, ক্রেতা-বিক্রেতাদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি ই-ক্যাব ১৬টি প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছিল। অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯টি প্রতিষ্ঠানের কেউ কেউ তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেছে। কেউ কেউ অভিযোগ নিষ্পত্তি ও ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা মেনে চলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। তাই প্রতিষ্ঠানগুলোকে পর্যবেক্ষণে রেখে বাড়তি তদন্ত চলছে।

ই-ক্যাব দাবি করেছে, সংগঠনের সব সদস্য প্রতিষ্ঠানকে সঠিক নিয়মে ব্যবসা পরিচালনা ও ক্রেতাদের স্বার্থরক্ষার মাধ্যমে ই-কমার্স খাতের সুনাম রক্ষার অনুরোধ করে বার্তা দেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে অস্বাভাবিক অফার বন্ধ করা, সময়মতো পণ্য সরবরাহ করা, ব্যাংক ডিপোজিটের মাধ্যমে টাকা গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকা, ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা প্রতিপালন করা, ভোক্তা অধিকারে আসা অভিযোগ দ্রুত সমাধান করার বিষয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ই–অরেঞ্জের বিরুদ্ধে সম্প্রতি অভিযোগ উঠেছে, গ্রাহকের ১ হাজার ১০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এই অভিযোগে বনানী থানার পুলিশ পরিদর্শক শেখ সোহেল রানার বোন, ভগ্নিপতিসহ পাঁচজনকে প্রতিষ্ঠানটির মালিক উল্লেখ করে তাঁদের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় প্রতারণার মামলা করেছেন এক ভুক্তভোগী। শেখ সোহেল রানার বোন ও ভগ্নিপতি চালাতেন ই–কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘ই–অরেঞ্জ’।

পুলিশও বলেছে, ই–অরেঞ্জের মূল মালিক পুলিশ কর্মকর্তা সোহেল রানার বোন সোনিয়া মেহজাবিন, ভগ্নিপতি মাসুকুর রহমান ও আমানউল্লাহ নামের এক ব্যক্তি। মামলার পর এই তিনজনই এখন কারাগারে। এজাহারভুক্ত আসামি বীথি আক্তারসহ দুজন পলাতক।
প্রসঙ্গত, ই–অরেঞ্জ প্রতিষ্ঠানটি মোটরসাইকেল, মুঠোফোনসহ বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী অনলাইনে বিক্রি করত।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক অপরাধ ©
A Sister Concern of Prachi 2020 Ltd