1. admin@dailyoporadh.com : admin :
অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায় শীর্ষে রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিটক - দৈনিক অপরাধ
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সাম্প্রদায়িক শক্তি মনে করে, ঠিক একাত্তরের মতো টার্গেট করে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চালিয়ে তাদের দেশ থেকে বের করে দেওয়া যায় কক্সবাজারের উখিয়ার থাইনখালী রোহিঙ্গা শিবিরে দুটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনায় সাত জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছেন দ্বিতীয় ধাপে সারা দেশে ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) নির্বাচন হতে যাচ্ছে কক্সবাজারে আটক হওয়া ব্যক্তিই কুমিল্লার ইকবাল হোসেন, পুলিশ সুপার (এসপি) উজানের পাহাড়ি ঢল আর দুই দিনের বর্ষণে লালমনিরহাটে তিস্তার পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে দুর্গাপূজার অষ্টমীর দিন কুমিল্লা নগরের নানুয়া দিঘির উত্তর পাড়ের অস্থায়ী পূজামণ্ডপে ইকবাল হোসেন (৩৫) পবিত্র কোরআন রেখেছিলেন বলে পুলিশ জানিয়েছে রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতার জন্যই দেশে সাম্প্রদায়িকতার বিস্তার ঘটছে বলে মনে করেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলিউড তারকা শাহরুখ খানের বাড়িতে তল্লাশি চালাতে ঢুকেছেন ভারতের মাদক নিয়ন্ত্রণ ব্যুরোর (এনসিবি) কর্মকর্তারা দেশের ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী স্কুলশিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে, ক্রমান্বয়ে দেশের সব মানুষই টিকা পাবে দেশের দ্বিতীয় শীর্ষ মোবাইল অপারেটর রবি আজিয়াটা তাদের সব মোবাইল নেটওয়ার্ক টাওয়ার বিক্রি করে দিচ্ছে

অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায় শীর্ষে রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিটক

জয়িতা দাস।
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৫ আগস্ট, ২০২১
  • ৬১ বার পঠিত

সরকারি মুঠোফোন অপারেটর টেলিটকের একজন খুচরা বিক্রেতা বা রিটেইলার মাত্র ২৪ ঘণ্টায় একজন গ্রাহকের নামে ১৪টি সিম (গ্রাহক শনাক্তকরণ নম্বর) নিবন্ধন করেছেন। এর মধ্যে ১টি বাদে বাকি ১৩টি সিমের নম্বর একই সিরিয়ালের। একটি সিম নিবন্ধিত হওয়ার সময় রাত ৩টা ১৮ মিনিট। সিমগুলো ব্যবহার করা হয়েছে অবৈধ ভিওআইপি (ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকল) ব্যবসায়।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) এক তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে যে টেলিটক নানাভাবে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার সুযোগ দিচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটির সংশ্লিষ্ট বিভাগের সহায়তায় রিটেইলাররা কোনো ধরনের যাচাই-বাছাই ছাড়া বিপুল পরিমাণ সিম বিক্রি করছেন বলে বিটিআরসির কাছে প্রতীয়মান হয়েছে। অভিযানে অবৈধ ভিওআইপিতে ব্যবহৃত সিম ধরা পড়ার পরের দিন কোনো ধরনের নির্দেশনা দেওয়ার আগেই টেলিটক আগবাড়িয়ে সিম নিষ্ক্রিয় করেছে। অবৈধভাবে কল টার্মিনেশন রোধ করার নিয়মকানুনও টেলিটক যথাযথভাবে প্রতিপালন করছে না।

ঘটনার শুরু গত ৩ ফেব্রুয়ারি। ওই দিন র‌্যাব ও বিটিআরসির পরিদর্শকদের একটি দল রাজধানীর নিউমার্কেট, তুরাগ ও মিরপুরের শাহ আলী থানা এলাকায় অভিযান চালায়। এই অভিযানে অবৈধ ভিওআইপিতে ব্যবহার করা বিপুল পরিমাণ সরঞ্জাম জব্দ করা হয়। এ সময় তিনজন ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করা হয়। জব্দ করা হয় ৩ হাজার ৪০০ সিম, যা টেলিটকের।

এরপর ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বিটিআরসি টেলিটকের রিটেইলারের সম্পৃক্ততা যাচাইয়ের জন্য তদন্ত শুরু করে। গত ২৩ ও ২৪ মার্চ টেলিটকের নেটওয়ার্ক অপারেশন সেন্টার সরেজমিনে পরিদর্শন করে তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করা হয়।

এ বিষয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, বিটিআরসির দেওয়া প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রশাসনিক তদন্ত করা হবে। এতে কারও বিরুদ্ধে
অপরাধের প্রমাণ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, ‘আমরা খুঁজে দেখব দায়দায়িত্ব কাদের ওপর ছিল, কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারী অনিয়মের সঙ্গে জড়িত ছিলেন কি না, কোনো পরিবেশক দায়ী কি না। কোনো মন্ত্রণালয় তার অধীন প্রতিষ্ঠানে কোনো ধরনের অনিয়ম সহ্য করতে পারে না।’
তদন্ত প্রতিবেদনে কয়েকটি যুক্তি তুলে ধরা হয়, যার মাধ্যমে অবৈধ কাজে টেলিটক কর্মকর্তাদের সম্পৃক্ততা উঠে আসে। বিটিআরসির তদন্ত দল বলেছে, অবৈধ কাজে ব্যবহার করা সিম একই ব্যক্তির অনুকূলে একই রিটেইলারের মাধ্যমে বিক্রি এবং আইএমইআইয়ের (মুঠোফোন শনাক্তকরণ নম্বর) অনুকূলে একাধিক নম্বর বরাদ্দ করা অর্থাৎ বায়োমেট্রিক রেজিস্ট্রেশন/অ্যাকটিভেশন—এ ক্ষেত্রে প্রতীয়মান হয় টেলিটকের সংশ্লিষ্ট বিভাগের সহায়তায় রিটেইলাররা কোনো ধরনের যাচাই–বাছাই ছাড়াই বিপুল পরিমাণ সিম বিপণন করে আসছে।

বিটিআরসির তদন্ত দল আরও বলেছে, টেলিটকের সেলস, ডিস্ট্রিবিউশন অ্যান্ড সিআরএম ডিভিশন ও সিস্টেম অপারেশন ডিভিশনের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সহায়তা ছাড়া শুধু পরিবেশক/রিটেইলার পর্যায়ে একই আইএমইআই ও জাতীয় পরিচয়পত্রের অনুকূলে একাধিক সিম সিরিজ বিপণনের সুযোগ পাওয়ার কথা নয়।

তদন্ত প্রতিবেদনে একটি সিম বন্ধের ঘটনা তুলে ধরা হয়। বলা হয়, গত ৩ ফেব্রুয়ারি অবৈধ ভিওআইপি অভিযানের পরের দিন সিমটি নিষ্ক্রিয় করে দেয় টেলিটক। যদিও সিমটি বন্ধের কোনো নির্দেশনা তাদের দেওয়া হয়নি। বিটিআরসির তদন্ত দল বলছে, নম্বর নিষ্ক্রিয় করার ক্ষেত্রে টেলিটকের অভ্যন্তরীণ কর্মকর্তারা জড়িত থাকতে পারেন।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে টেলিটকের রেগুলেটরি বিভাগের ব্যবস্থাপক এস এম লুৎফুল্লাহ হিল মুজিব প্রথম আলোকে বলেন, যদি কোনো কর্মকর্তা এসব কাজে জড়িত থাকতেন, তাহলে ৩ হাজার ৪০০ সিম ১ হাজার ৪৪৫ জন ব্যক্তির নামে নিবন্ধিত হতো না, অল্প কয়েকজন ব্যক্তির নামেই সিমগুলো নিবন্ধিত হতো। একটি সিম নিবন্ধনের পর আরেকটি সিম নিবন্ধন করতে একজন গ্রাহককে অন্তত তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে—তাহলে ২৪ ঘণ্টায় একজন গ্রাহক কীভাবে ১৪টি সিম নিবন্ধন করেছেন, এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে বিটিআরসি ভুল ব্যাখ্যা করেছে। গভীর রাতে বিমানবন্দরে সিম নিবন্ধন হতে পারে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক অপরাধ ©
A Sister Concern of Prachi 2020 Ltd