1. admin@dailyoporadh.com : admin :
প্রতারক চক্রের নতুন নাম যুক্ত হয়েছে, ‘খড় পার্টি’ - দৈনিক অপরাধ
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ইকবাল কার প্ররোচনায় পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রেখেছিলেন, তা বলেননি বাংলাদেশের সঙ্গে তুরস্কের বাণিজ্যিক সম্পর্ক করোনা মহামারির মধ্যেও খুব একটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন তুরস্কের রাষ্ট্রদূত ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশকে পৃথিবীর ‘নাম্বার ওয়ান’ বা সেরা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন করোনা সংক্রমণে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে, এ সময় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ২৭৮ জন। চেক জালিয়াতির মাধ্যমে যশোর শিক্ষা বোর্ডের ব্যাংক হিসাব থেকে আরও আড়াই কোটি টাকা আত্মসাত সারা দেশে প্রতিমা, পূজামণ্ডপ, মন্দিরে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে গণ–অনশন, গণ–অবস্থান ও বিক্ষোভ মিছিল করছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা উচ্চমাধ্যমিক বা এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের জন্য আবার সুযোগ দিয়েছে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড সাম্প্রদায়িক শক্তি মনে করে, ঠিক একাত্তরের মতো টার্গেট করে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চালিয়ে তাদের দেশ থেকে বের করে দেওয়া যায় কক্সবাজারের উখিয়ার থাইনখালী রোহিঙ্গা শিবিরে দুটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনায় সাত জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছেন দ্বিতীয় ধাপে সারা দেশে ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) নির্বাচন হতে যাচ্ছে

প্রতারক চক্রের নতুন নাম যুক্ত হয়েছে, ‘খড় পার্টি’

দৈনিক অপরাধ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৪ আগস্ট, ২০২১
  • ৪৩ বার পঠিত

প্রতারক চক্রের ফাঁদ, কৌশল ও প্রতারণার ধরন বুঝে কারও নাম হয় অজ্ঞান পার্টি, কেউ-বা মলম পার্টি, কারও পরিচয় সালাম পার্টি বা ধাক্কা পার্টি। এ রকম বাহারি সব নামের ভিড়ে আরও একটি নতুন নাম যুক্ত হয়েছে, তারা ‘খড় পার্টি’। তারা মূলত নারীদের ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করে। খড় পার্টির তিন সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশ জানতে পেরেছে, রাজধানী এবং আশপাশের এলাকায় এ ধরনের ৪০টি দল সক্রিয়। এই চক্রের সবার আস্তানা নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার চনপাড়া গ্রামে।

পুলিশ জানায়, সাধারণ পথঘাটে বিপদগ্রস্ত সেজে কোনো নারীর কাছে সহায়তা চেয়ে আলাপ শুরু করেন খড় পার্টির সদস্যরা। নিখুঁত অভিনয় আর কথার মায়াজালে ফেলে ওই নারীকে ফাঁদে ফেলেন তাঁরা। পরে নারীর কাছে থাকা নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোনসহ মূল্যবান সামগ্রী নিয়ে পালিয়ে যান।

রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় গত বৃহস্পতিবার এক নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে এই চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁরা হলেন সোহেল মিয়া (২৬), মো. সাগর (৩৫) ও আল আমিন (২৬)। তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করে অভিনব প্রতারণার বিষয়টি জানতে পেরেছে পুলিশ। এই চক্রই গত দুই বছরে ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় দুই শতাধিক নারীকে ফাঁদে ফেলে স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোন ও নগদ টাকা কেড়ে নিয়েছে।

হাতিরঝিল থানা ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও অঞ্চলের অধীন। এই অঞ্চলের অতিরিক্ত উপকমিশনার হাফিজ আল ফারুক প্রথম আলোকে বলেন, চক্রটি নতুন, তাদের কৌশলও অভিনব। রাজধানীর পাশাপাশি মুন্সিগঞ্জ এবং গাজীপুর শহরে প্রায় দুই বছর ধরে তারা সক্রিয়। চক্রের তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গেছে, রূপগঞ্জ উপজেলার চনপাড়া গ্রামের চনপাড়া বস্তিতে চক্রের ৪০টি দল আছে। একেকটি দলের সদস্য তিনজন।
চক্রের নাম কেন ‘খড় পার্টি’

চক্রের নাম কেন খড় পার্টি, তা নিয়ে রূপগঞ্জের স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ দুই ধরনের বক্তব্য দিয়েছে। পুলিশের তেজগাঁও অঞ্চলের একাধিক কর্মকর্তা বলেছেন, বাতাসে যেমন ‘খড়’ উড়ে যায়, এক স্থানে থাকে না, ঠিক তেমনি এই চক্রের সদস্যরা কাজ শেষে দ্রুত ‘খড়কুটোর’ মতো হারিয়ে যান। যে কারণে তারা খড় পার্টি।

রূপগঞ্জের চনপাড়া গ্রাম ও সেখানকার বস্তিতে এই চক্রের যাঁরা থাকেন, তাঁদের কেউই স্থানীয় বাসিন্দা নন। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে এসে তাঁরা বস্তিতে ভাসমান মানুষ হিসেবে আশ্রয় নিয়েছেন। কয়েক বছর ধরে সেখানে থাকলেও স্থানীয় লোকজন তাঁদের খড়কুটোর মতো মনে করে। যে কারণে চক্রের সদস্যরা খড় পার্টি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে।

পুলিশ জানায়, এই চক্রের প্রধান চনপাড়া এলাকার আলী আজগর নামে এক ব্যক্তি। তাঁর কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে চক্রের বেশির ভাগ সদস্য প্রতারণায় যুক্ত হয়েছেন। তিনি চক্রের সদস্যের কাছে ‘মুরব্বি’। তিনি আগে বিভিন্ন ধরনের প্রতারণায় জড়িত ছিলেন। এখন খড় পার্টি চালাচ্ছেন। আজগর নিজে কোনো ‘অভিযানে’ গেলে যা আয় হয় তার ৬০ শতাংশ একাই নেন। বাকি ৪০ শতাংশ পান অন্য দুজন।

পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ধরা পড়া চক্রের তিন সদস্যের মধ্যে সাগর আগে হোটেলে বাবুর্চির সহকারী হিসেবে কাজ করতেন। আর সোহেল ছিলেন বাসচালকের সহকারী। এক বছর আগে তাঁরা আলী আজগরের মাধ্যমে প্রতারণায় জড়িয়ে পড়েন। আগে অন্য এলাকায় থাকলেও খড় পার্টির সদস্য হিসেবে যোগ দেওয়ার পর চনপাড়া বস্তিতে গিয়ে ওঠেন। আর চক্রের আরেক সদস্য আল আমিন স্বর্ণের ব্যবসা করেন। তিনি মাঠে ‘অভিযানে’ যান না। প্রতারণা করে পাওয়া স্বর্ণালংকার চক্রের সদস্যদের কাছ থেকে কম দামে কিনে নেন। তিনি বলেন, খড় পার্টি চক্রের সবাইকে ধরার চেষ্টা চলছে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ দৈনিক অপরাধ ©
A Sister Concern of Prachi 2020 Ltd